একটি মাঠ এবং আনন্দ-বেদনার কাব্য

0 ৩০৪

এ কেবল একটি মাঠ নয়, এ এক ইতিহাস। শত বছরের একটি হাজারো স্মৃতি তো থাকবেই। ১১৮ বছর ধরে যে স্টেডিয়াম তার বুকে প্রতি বছর লাখো ফুটবলপ্রেমীর আনন্দ-বেদনার সাক্ষী হয়ে ছিল তা আর থাকছে না। কালের বিবর্তনে আর সময়ের দাবি সামাল দিতে বদলে ফেলতে হচ্ছে পুরনোকে। ইংল্যান্ডের রাজধানী লন্ডনের বুকে হোয়াইট হার্ট লেন। টটেনহ্যাম হটস্পার ক্লাবটি এ এলাকারই। এক সময় ৩৬০০০ আসনই এখানে অনেক মনে হতো। কিন্তু এখন তা বড়ই অপ্রতুল। অনেক সমর্থককে মাঠের বাইরে থাকতে হয়। তাই মাঠ সংস্কারের দাবি ছিল দীর্ঘদিনের। এবার ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগে দলটি সাফল্যের চূড়ায়। গতবার হয়েছিল তৃতীয় আর রানার্সআপ। দলটি অনেকদিন ধরে শিরোপা লড়াইয়ে জিততে না পারলেও শুরুর দিকে ইংল্যান্ডের সবচেয়ে সাফল্যমণ্ডিত দল ছিল টটেনহ্যাম। প্রতিষ্ঠা ১৮৮২ সালে ১৯০১ সালে লীগের বাইরের দল হিসেবে এফএ কাপ জয় করে। ইংল্যান্ডের ইতিহাসে প্রথম দল হিসেবে এফএ কাপ ও লীগ জয় করে একই বছর ১৯৬০-৬১ সালে। ১৯৬২-তেও এফএ কাপ জেতে তারা। ১৯৬৩-তে ইংল্যান্ডের প্রথম দল হিসেবে ইউরোপিয়ান কাপ উইনার্স কাপ জয় করে টটেনহ্যাম হটস্পার। এতেই বোঝা যায় দলটির ঐতিহ্য কতটা সমৃদ্ধ।
রোববার হোয়াইট হার্ট লেনের মাঠে শেষ ম্যাচটি হয়ে গেল। আগামী মৌসুম তারা খেলবে ওয়েম্বলিতে। ২০১৮-১৯ থেকে ফের তারা খেলবে নিজেদের নতুন মাঠে, যেখানে ৬০,০০০ এর বেশি দর্শক বসে খেলা দেখতে পারবে। খেলার পর আবেগ ধরে রাখতে পারেরনি দর্শকরা। অনেকে স্মৃতিকাতর হয়ে পড়েন। হাজারো দর্শক মাঠের ভেতরে ঢুকে পড়েন।
ঐতিহ্যবাহী মাঠের শেষ খেলাটি জয়ে এবারের লীগে টানা ১৪ ম্যাচ জয়ের রেকর্ড স্পর্শ করে টটেনহ্যাম। এবার লীগে নিজেদের মাঠে কোনো খেলাতেই হারেনি রানার্সআপ নিশ্চিত করে ফেলা টটেনহ্যাম। ম্যানইউকে হারিয়ে তাদের পয়েন্ট হয়েছে ৩৬ খেলায় ৮০। ম্যানসিটি ২ খেলায় জিতলে হবে ৭৮ পয়েন্ট। রোববার রাতে টটেনহ্যাম হটস্পার ২-১ গোলে হারায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে। মাত্র চার মিনিটের সময় ওয়ানইয়ামার গোলে এগিয়ে যায় টটেনহ্যাম। বিরতির পর তিন মিনিটের মাথায় ব্যবধান ২-০ করে ফেলেন হ্যারি কেন। ৭১ মিনিটের সময় একটি গোল শোধ করেন ওয়েইন রুনি। দল হারলেও এ মাঠের শেষ গোল হিসেবে গোলটি চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে রুনির।
এ হারে শীর্ষ চারে থাকার সম্ভাবনাটা শেষ হয়ে গেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের। ষষ্ঠস্থানে নেমে গেছে ম্যানইউ। ৩৬ খেলায় তাদের সংগ্রহ ৬৫ পয়েন্ট। আর পাঁচে থাকা আর্সেনালের পয়েন্ট ৬৯। চারে থাকা ম্যানচেস্টার সিটির পয়েন্ট ৭২। ম্যানইউ পরের দুই খেলায় জিতলেও সিটির সমান হতে পারবে না। তবে এখনো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের চ্যাম্পিয়ন্স লীগে খেলার সম্ভাবনা আছে। ২৫শে মে তাদের জিততে হবে ইউরোপা লীগের ফাইনালে। তাদের প্রতিপক্ষ নেদারল্যান্ডসের আয়াক্স আমস্টারডম। লিভারপুল ৪-০ গোলে ওয়েস্টহ্যামকে হারিয়ে তৃতীয়স্থানে থাকার সম্ভাবনা টিকিয়ে রেখেছে। ৩৭ খেলায় তাদের পয়েন্ট ৭৩। তবে ম্যানসিটি এক খেলা কম খেলার কারণে লিভারপুলকে হটানোর সম্ভাবনা তাদেরও আছে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

মন্তব্য
Loading...