ইউটিউবে খ্যাতি পেতে বয়ফ্রেন্ডের বুকে গুলি, অতপর…

0 ৩৫৪

যুক্তরাষ্ট্রের আদালত এক নারীকে ছয় মাসের জেল দিয়েছেন। কারণ ইউটিউবে ভিডিও ভাইরাল হবে এ আশায় তিনি তার বয়ফ্রেন্ডের বুকে গুলি চালিয়েছেন।

পেড্রো রুইজ নামে এক ব্যক্তি নিজের বুকের ওপর একটি অভিধান ধরে রাখেন এবং নারী বন্ধু মোনালিসা পেরেসকে বলেন গুলি চালাতে।
কিন্তু ১.৫ ইঞ্চি পুরু ডিকশনারি ভেদ করে গুলি তার বুকে গিয়ে লাগে। পরে ডাক্তাররা রাইজকে মৃত ঘোষণা করেন। -খবর বিবিসি অনলাইনের।

ঘটনাটি ঘটেছে ছয় মাস আগে মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের হ্যালস্টাডে।
মামলার বিবরণে বলা হয়েছে, রুইজ ও মিস পেরেস তাদের জীবনযাত্রার ভিডিও প্রতিদিন ইউটিউবে পোস্ট করতেন। তারা নানা ধরনের প্র্যাংক বা রসিকতাও করতেন অনলাইনে। কিন্তু সেগুলো ছিল নির্দোষ রঙ্গরসিকতা।

টুইটারে মোনালিসা বলেন, আমি ও পেড্রো সম্ভবত খুবই বিপজ্জনক এক ভিডিও শুট করব। এটি তারই পরিকল্পনা- আমার না।
কিন্তু গত বছর জুন মাসে তারা পরীক্ষা চালিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত নেন যে একটি বন্দুকের গুলি ডিকশনারি ভেদ করতে পারে কিনা। তাদের ধারণা ছিল গুলি ডিকশনারি ভেদ করতে পারবে না।

তারা ভেবেছিলেন সেই ভিডিওটি ইউটিউবে পোস্ট করা হলে সেটি ভাইরাল হবে এবং তারা বিখ্যাত হয়ে উঠবেন। এই পরীক্ষার সময় সেখানে অন্তত ৩০ জন দর্শক উপস্থিত ছিলেন।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, পেরেস তার শক্তিধর ডেজার্ট ঈগল বন্দুক দিয়ে রুইজের বুকে গুলি চালান। গুলি লাগার পর রুইজ পড়ে যান। জরুরি ফোনে ডাক্তার ডাকা হয়। রুইজকে বাঁচানো যায়নি।

এ ঘটনা নিয়ে যে মামলা হয় তাতে প্রমাণিত হয় যে রুইজ নিজেই চেয়েছিলেন তার ওপর গুলি চালানো হোক। এর পর অনিচ্ছাকৃত খুনের জন্য পেরেস আদালতে দোষ স্বীকার করেন। আদালত তার বিরুদ্ধে লঘুদণ্ডের রায় দেন।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

মন্তব্য
Loading...