বাংলাদেশী এক যাত্রীর প্রসব বেদনায় দুই দুইটি ফ্লাইটের জরুরি অবতরণ

0 ৫৬৩

এক যাত্রীর প্রসব বেদনায় পরপর দুইদিন দুই এয়ারলাইন্সের দুটি ফ্লাইট জরুরি অবতরণ করেছে। গর্ভবতী বাংলাদেশী এক যাত্রীর কারণে প্রথমে সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি ও পরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট জরুরি অবতরণ করে।

২৬ বছরের গর্ভবতী অনামিকা খাতুন বুধবার সৌদি আরবের জেদ্দা থেকে সউদি এরাবিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করেন। পথে হঠাৎ তার প্রসব বেদনা শুরু হয়। সাউদিয়ার ওই ফ্লাইট ওমানের মাসকাটে জরুরি অবতরণ করে। অনামিকাকে মাসকাট এয়ারপোর্ট থেকে সরাসরি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

মাসকাট হাসপাতালে ৫ দিন থাকলেও সন্তান প্রসব হয়নি তার। চিকিৎসার পর তিনি সোমবার রাতে মাসকাট থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ালাইন্সের একটি ফ্লাইটে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করেন।

ফ্লাই গ্লোবাল থেকে লিজে নেয়া বিমানের ফ্লাইটটিতে অনামিকা ওঠার পর বিমানের নিজস্ব ক্রুরা তাকে নিয়ে ফ্লাই করতে অপারগতা প্রকাশ করেন। কিন্তু ফ্লাই গ্লোবালের ক্রুরা পাইলটের অনুমতি নিয়ে ৩৩ সপ্তাহের গর্ভবতী অনামিকাকে নিয়ে উড্ডয়নে সম্মত হন।

মাসকাটের স্থানীয় সময় রাত ২টা ২০ মিনিটে বিজি জিরো টু টু ফ্লাইটটি অনামিকাসহ টেকঅফ করে। ওই ফ্লাইটে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত এয়ার মার্শাল ইনামুল বারী এবং বিমানের কেবিন ক্রু এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম দস্তগীরও ছিলেন।

এক ঘণ্টার বেশি সময় আকাশে ওড়ার পর বোয়িং ট্রিপল সেভেন থ্রি হানড্রেড এয়ারক্র্যাফটের ৩৫ এর এফ নম্বর সিটে বসা ওই যাত্রীর আবার প্রসব বেদনা শুরু হয়। ফ্লাইটে বিমানের দুই নারী কেবিন ক্রু প্রসব বেদনা কমানোর চেষ্টা করেন। এমনকি তারা ফ্লাইটের ভেতরে প্রসবের সব প্রস্তুতিও নিয়ে ফেলেন।

কিন্তু অনামিকা খাতুনের অবস্থা বেশি খারাপ হলে পাইলটকে বিষয়টি জানানো হয়। ফ্লাইটে উপস্থিত বিমান চেয়ারম্যানের সাথে আলোচনা করে পাইলট দ্রুত আশেপাশের কোনো এয়ারপোর্টে ফ্লাইটটি জরুরি অবতণের সিদ্ধান্ত নেন। তবে কাছাকাছি আরব সাগর থাকায় বিমানের ঢাকাগামী ফ্লাইটটি ঘুরিয়ে আবার মাসকাটে নিয়ে যাওয়া হয়।

মাসকাট আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামার পর অসুস্থ অনামিকাকে আবার অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নেয়া হয়। আর প্রায় ৪ ঘণ্টা পর বিমানের ফ্লাইটটি মাসকাট থেকে অনামিকাকে ছাড়াই রওনা করে মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা এসে পৌঁছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত এয়ার মার্শাল ইনামুল বারী চ্যানেল আইকে বলেন, মেডিকেল সার্টিফিকেট নিয়েই ওই মহিলা বিমানে যাত্রা করেছিলেন। কিন্তু আকাশে ওঠার পর প্রেসারে তার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। জীবন বাঁচানোর স্বার্থেই বিমানের জরুরি অবতরণ করানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

মন্তব্য
Loading...