Sylhet Express

সিলেটে স্বল্প খরচে চিকিৎসা প্রদান করছে লায়ন্স শিশু হাসপাতাল

0 ২৪৩

স্বল্প খরচে চিকিৎসা প্রদানের মাধ্যমে মানসম্মত সেবা প্রদান করে আসছে লায়ন্স শিশু হাসপাতাল। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এ হাসপাতাল সবার সাধ্যের মধ্যে সাশ্রয়ী চিকিৎসা সেবাও প্রদান করছে। যে কারণে বাণিজ্যের এ যুগেও লায়ন্স শিশু হাসপাতাল একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠান হিসেবেই সকলের কাছে আস্থা অর্জন করতে পেরেছে। আগামীতে এ প্রতিষ্ঠান সেবার মান অক্ষুন্ন রাখতে কাজ করবে।লায়ন্স শিশু হাসপাতালের বার্ষিক সাধারণ সভায় এ তথ্য জানানো হয়।

হাসপাতালের ২০১৭-১৮ বছরের বার্ষিক সাধারণ সভা শুক্রবার (২৬ এপ্রিল) রাতে নগরীর একটি অভিজাত হোটেলের হল রুমে অনুষ্ঠিত হয়।

হাসপাতালের চেয়ারম্যান লায়ন জহির বক্ত-এর সভাপতিত্বে বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লোকমান উদ্দিন চৌধুরী, লায়ন্স ক্লাবের জেলা ৩১৫ বি-১ এর সাবেক জেলা গভর্ণর ডা. আজিজুর রহমান, চার্টার মেম্বার লায়ন এম মুহিবুর রহমান।

লায়ন্স শিশু হাসপাতালের উপদেষ্টা লায়ন মো. মাহবুবুল হকের পরিচালনায় লায়ন মুহিতুর রহমানের কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন লায়ন ডা. শামীমুর রহমান। পরে বিগত সাধারণ সভার কার্যবিবরণী পাঠ ও অনুমোদন করান ডা. সোলায়মান আহমদ। এছাড়া ২০১৭-১৮ বছরের প্রতিবেদন উপস্থাপন ও অনুমোদন করান হাসপাতালের সেক্রেটারি লায়ন ইমরান আহমদ ও ট্রেজারার রিপোর্ট পেশ করেন লায়ন জোবায়ের আহমদ চৌধুরী (এম.জে.এফ)।

সাধারণ সম্পাদকের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘২০১১ সাল থেকে আধুনিক ও সম্প্রসারিত হয়ে নতুন রূপে এই হাসপাতালের কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। যার ফলে রোগীর সেবা বর্ধিত কলেবরে প্রদান করা সম্ভব হয়েছে। ২০১৭-১৮ সনে হাসপাতাল থেকে সেবা নিয়েছেন ২৮ হাজার ৩৬৪ জন। যুগের সাথে চিকিৎসা উপযোগী ও রোগ নির্ণয়ের বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা ও আধুনিক চিকিৎসার সকল ব্যবস্থা থাকলে এই হাসপাতালটি হতে পারে শিশুদের জন্য একটি অন্যতম হাসপাতাল ও সিলেটের একমাত্র শিশুস্বাস্থ্যের অবলম্বন’।

কোষাধ্যক্ষের প্রতিবেদনে ট্রেজারার লায়ন জুবায়ের আহমদ চৌধুরী ২০১৭ সালের ১ জুলাই হতে ২০১৮ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত আয়-ব্যয়ের হিসাব তুলে ধরেন। এতে বলা হয়েছে, ২০১৭-১৮ বছরে হাসপাতালের সর্বমোট আয় ৭২ লাখ ৫২ হাজার ৮৮৯টাকা এবং ব্যয় ৬৫ লাখ ৫৬ হাজার ৬৪৭ টাকা। ব্যাংক জমা ও নগদ স্থিতিসহ সবমিলিয়ে বর্তমানে জমা আছে ৯৩ লাখ ২৯ হাজার ৫৯৮ টাকা।’

বার্ষিক সাধারণ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- লায়ন্স ক্লাব অব সিলেটের প্রেসিডেন্ট ডা. খন্দকার মাজহারুল আনোয়ার শাহজাহান, হাসপাতালের ভাইস প্রেসিডেন্ট লায়ন এম খসরু, লায়ন আসমা কামরান, লায়ন ডা. তহুর আব্দুল্লাহ চৌধুরী, লায়ন হুমায়ুন কবির, লায়ন আব্দুল্লাহ আল মামুন, লায়ন আব্দুস সাত্তার সোয়েব, লায়ন গৌতম লাল দত্ত, লায়ন শামসুল আলম খান সাজু, লায়ন খায়রুননেছা, লায়ন মাহবুবুল হক, ফজলুল বাসিত বেলাল, লায়ন আবু তালেব মুরাদ, লায়ন মোহাম্মদ নওশেদ আলী সবুজ, লায়ন আছিয়া খানম শিকদার, লায়ন ডা. শামিমুর রহমান, মিসবাহুল ইসলাম কয়েস, লায়ন আফতাব আহমেদ প্রমুখ।

বিশেষ মতামত দেন সিনিয়র সাংবাদিক আফতাব চৌধুরী, হাসপাতালের আজীবন সদস্য এডভোকেট মুজিবুর রহমান। সভায় বিগত সাধারণ সভার কার্যবিবরণী পেশ ও অনুমোদন, সেক্রেটারি কর্তৃক বিগত বছরের প্রতিবেদন পেশ, কোষাধ্যক্ষ র্কতৃক বিগত বছরের অডিট রিপোর্ট পেশ এবং অডিটর নিয়োগ, জীবন সদস্যদের সনদ প্রদান, সম্মানিত সদস্যবৃন্দের বক্তব্য এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন, সভাপতির ভাষণ ও আপ্যায়নের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়। এছাড়া আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দসহ দাতা সদস্য, আজীবন সদস্য, লায়নবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। – বিজ্ঞপ্তি

মন্তব্য
Loading...