Sylhet Express

মোগলাবাজার থানা পুলিশের মানবিকতা

0 ১৫১

মিনারা বেগম বয়স প্রায় ৭০ ছুঁই ছু্ঁই একজন অসহায় বৃদ্ধা, স্বামী-সিরাজুল ইসলাম মসজিদের ইমামতি ও মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করতেন। বাড়ী ছিল সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক থানার কৈতকে। প্রায় ২৫ বছর হয় স্বামী মারা যান। একমাত্র শিশু কন্যা নিপা আক্তার ছিল তার বেঁচে থাকার অবলম্বন। কিন্তু সেখানেও বাঁধা। ৬ বছর বয়সে নিপা আক্তার পানিতে ডুবে মারা যায়।

এরপর সব হারিয়ে একদিন চলে আসেন সিলেট শহরে। এখানে সেখানে তার বসবাস। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের প্রাক্কালে চলে আসেন মোগলাবাজার থানাধীন ২৭নং ওয়ার্ডের গোটাটিকর এলাকার নিম্ন আয়ের মানুষ মঈন মিয়ার বাড়ীতে। মঈন মিয়ার সহানুভূতিতে একটি কুঁড়ে ঘরে ভাড়ায় আশ্রয় হয় তার। মানুষের দেয়া মানবিক সহায়তায় চলে একাকিত্বের সংসার। করোনা ভাইরাস সংকটে একদিন সিলেট টু লন্ডন চ্যানেলে তার সচিত্র আর্তনাদ প্রকাশিত হয়। তাৎক্ষনিক মোগলাবাজার থানা পুলিশের পক্ষ থেকে মানবিক সহযোগিতা নিয়ে তার পাশে দাঁড়ানো হয়। ইতোমধ্যে অনেক সমাজ হিতৈষী ব্যক্তিবর্গ তাকে মানবিক সহায়তা করেন। ভালই চলছিল তার। এরই মধ্যে শোনা গেল তিনি অসুস্থ্য। এমন পরিস্থিতিতে তাৎক্ষণিক মোগলাবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব আখতার হোসেন, এসআই/রাজীব কুমার রায়, এএসআই/মোঃ আব্দুল জলিল মেসার্স রিফাত ফার্মেসী গোটাটিকর পয়েন্ট চেম্বার থেকে ডাঃ আব্দুল আজিজ সাহেব কে নিয়ে হাজির হন মিনারা বেগমের কুঁড়ে ঘরের ঠিকানায়।

প্রাথমিক পর্যায়ে খোঁজ খবর নেন। তারপর ডাক্তার সাহেব মিনারা বেগমের ব্লাড প্রেসার এবং শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করে চিকিৎসাপত্র দেন। অফিসার ইনচার্জ মোগলাবাজার থানা তার ঔষধ পত্র সরবরাহ করবেন শুনে ডাক্তার আব্দুল আজিজ সাহেব আবেগ প্রবন হয়ে উপস্থিত লোকজনের সামনে তার চিকিৎসার পূর্ণ দায়িত্ব গ্রহনের ঘোষনা দেন। ও.সি আখতার হোসেন এ সময়ে মিনারা বেগমকে প্রায় ১৫ দিনের খাদ্য সামগ্রী সহ নগদ টাকার মানবিক সহযোগিতা প্রদান করেন। এ সময়ে স্থানীয় সমাজ হিতৈষী ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত হলে তাদেরকেও অসহায় মিনারা বেগমের প্রতি সহানুভূতিশীল এবং তার খোঁজ খবররাখার জন্য বিশেষ অনুরোধ করেন। বর্তমান করোনা সংকটেসিলেট মেট্টোপলিটন এর মানবিক পুলিশ কমিশনার জনাব গোলাম কিবরিয়া, বিপিএম মহোদয়ের প্রেরনায় সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার জনাব পলাশ রঞ্জন দে ও অফিসার ইনচার্জ আখতার হোসেন এর উদ্যোগে মোগলাবাজার থানা পুলিশ এর মানবিক কার্যক্রম করোনা সংকটের শুরু থেকেই চলছে।

মন্তব্য
Loading...